Saturday , September 23 2017
শিরোনাম
হোম / আন্তর্জাতিক / এবার হজ বর্জন করেছে ইরান
A Muslim pilgrim prays atop Mount Mercy on the plains of Arafat during the peak of the annual haj pilgrimage, near the holy city of Mecca...A Muslim pilgrim prays atop Mount Mercy on the plains of Arafat during the peak of the annual haj pilgrimage, near the holy city of Mecca early morning October 14, 2013. An estimated two million Muslims were in Mecca, Saudi Arabia, on Monday morning for the start of the annual Haj pilgrimage. REUTERS/Ibraheem Abu Mustafa (SAUDI ARABIA - Tags: SOCIETY RELIGION)

এবার হজ বর্জন করেছে ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

গতবার হজের সময় মিনায় পদদলনে প্রায় একহাজার হজযাত্রীর মৃত্যুর প্রেক্ষাপটে নিরাপত্তা এবং নাশকতার প্রশ্ন তুলে এই বছর হজ বর্জন করতে যাচ্ছে ইরান। এই সিদ্ধান্তের জন্য পুরোপুরি সৌদি আরবকে দায়ী করেছে শিয়া মুসলিম প্রধান মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত দেশটির হজ ও তীর্থযাত্রা সংস্থার এক বিবৃতি উদ্ধৃত করে রয়টার্স এই খবর দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সৌদি সরকারের চলমান নাশকতার কারণে আমরা ঘোষণা করছি যে ইরানের হজযাত্রীরা এই বছর হজে যাচ্ছেন না। এর জন্য সৌদি আরবের সরকার দায়ী।

ইরানের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আলি জান্নাতি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলেছেন, গত বছর সৌদি সরকারের হজ ব্যবস্থাপনা এবং ইরান ও অন্যান্য দেশের নিহত হজযাত্রীদের যন্ত্রণার কথা বিবেচনা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের কাছে হজযাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আঞ্চলিক প্রভাব বিস্তার নিয়ে প্রতিবেশী এই দুই দেশের সম্পর্কে বৈরিতা দীর্ঘদিনের। ধর্মীয় মতাদর্শিক অবস্থান নিয়েও রয়েছে দ্বন্দ্ব। বার্ষিক ধর্মীয় অনুষ্ঠান হজ পালনে প্রতি বছরই সারা বিশ্ব থেকে ২৫ লাখ মুসলিম সমবেত হন সৌদি আরবের মক্কায়।

A Muslim pilgrim prays atop Mount Mercy on the plains of Arafat during the peak of the annual haj pilgrimage, near the holy city of Mecca...A Muslim pilgrim prays atop Mount Mercy on the plains of Arafat during the peak of the annual haj pilgrimage, near the holy city of Mecca early morning October 14, 2013. An estimated two million Muslims were in Mecca, Saudi Arabia, on Monday morning for the start of the annual Haj pilgrimage. REUTERS/Ibraheem Abu Mustafa (SAUDI ARABIA - Tags: SOCIETY RELIGION)

গত বছর হজ চলাকালে মিনায় পদদলনে সৌদি সরকারের হিসাবে সাত শতাধিক হজযাত্রীর মৃত্যু ঘটে। যাদের বেশিরভাগই ইরানি। ইরান তখন দাবি তোলে নিহতের সংখ্যা অন্তত ২ হাজার। এই সংখ্যা রাজনৈতিক কারনে লুকাচ্ছে সৌদি সরকার। এই ঘটনার জন্য হজ ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা সৌদি কর্তৃপক্ষের অদূরদর্শিতা, দায়িত্ব জ্ঞানহীনতাকে দায়ী করেছে ইরান সরকার। অন্যদিকে সৌদি কর্মকর্তারা দায়ী করেন ইরানি হজযাত্রীদের নির্দেশনা না মেনে চলাকে।

গত বছরের এই ঘটনার পর ইরান ও সৌদি আরবের সম্পর্কে নতুন করে টানাপড়েন দেখা দেয়। হজের মতো সারা বিশ্বের মুসলিমদের অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব এককভাবে সৌদি আরবের হাতে থাকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ইরানি বিভিন্ন কর্মকর্তা। আরব নিউজের তথ্য অনুযায়ী, হজ আর ওমরাহ মিলিয়ে বছরে গড়ে সাড়ে ১৬ বিলিয়ন ডলার আয় করে সৌদি আরব। যা দেশটির মোট জিডিপির ৩ শতাংশ।

Hajj_and_Umrah.focus-none.width-800

হজের ঘটনায় টানাপোড়েনের মধ্যে এই বছরের শুরুতে সৌদি সরকার একজন নেতৃস্থানীয় শিয়া ধর্মীয় নেতাকে মৃত্যুদন্ড দিলে উত্তেজনা চরম আকার ধারণ করে। ইরানের শিয়ারা তেহরানে সৌদি আরবের দূতাবাসে আগুন ধরিয়ে দেয়। ইরান সরকারও সৌদি আরবের সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করে। সৌদি সরকার তার প্রতিক্রিয়ায় ইরানের সঙ্গে সব ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। সিরিয়া সংকটসহ মধ্যপ্রাচ্যের নানা বিষয়ে দেশ দুটিকে পরস্পর বিরোধী ভূমিকায় অবস্থান নেয়।

এর মধ্যেই হজের বিষয়ে একমত হতে ইরানের হজ ও তীর্থযাত্রা সংস্থার একটি প্রতিনিধি দল সৌদি আরবের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করতে রিয়াদে যায়। তবে ইরানের কূটনীতিকরা হজের বিষয়ে সমঝোতায় উপনীত হতে ব্যর্থ হয়ে গত শুক্রবার দেশে ফিরে যায় বলে সৌদি আরবের গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে। এরপর দুই দিন পরেই ইরানের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি এসেছে।

TOPSHOTS Muslim pilgrims perform the final walk (Tawaf al-Wadaa) around the Kaaba at the Grand Mosque in the Saudi holy city of Mecca on November 30, 2009. The annual Muslim hajj pilgrimage to Mecca wound up without the feared mass outbreak of swine flu, Saudi authorities said, reporting a total of five deaths and 73 proven cases. AFP PHOTO/MAHMUD HAMS (Photo credit should read MAHMUD HAMS/AFP/Getty Images)

ইরানের সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেছেন, ইরানিরা যাতে এবার হজে না যায় সেই জন্য উদ্দেশ্যমূলক ভাবেই সব কাজ করেছে সৌদি আরব। অন্যদিকে ইরানের নেওয়া এই সিদ্ধান্তের দায় অস্বীকার করেছে সৌদি আরব। সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবাইর এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ধর্মীয় আচার পালনে কারও জন্য কোনো বাধা সৌদি আরব দেয় না। ইরান সমঝোতায় আসতে চায়নি। তারা হজের সময় বিক্ষোভের অনুমতি দেওয়ার দাবি জানিয়েছিল। কিন্তু এটা হজে বড় ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে। যা কোনোভাবে অনুমোদনযোগ্য নয়। ইরানের হজ বর্জনের ঘটনা এটাই প্রথম নয়।

এর আগেও দেশটি তিন বছর হজ বর্জন করেছিল। ১৯৮৭ সালে মক্কায় যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল বিরোধী মিছিলে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে ৪০২ জন হজযাত্রী প্রাণ হারালে পরবর্তী তিন বছর ইরানিরা হজে যায়নি। তখন নিহত অধিকাংশই ছিলেন ইরানের নাগরিক। এদিকে গত বছর হজে পদদলনের আট মাস পেরিয়ে গেলেও তদন্ত প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ করেনি সৌদি সরকার।

Check Also

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সু চি ও মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে ‘চাপ’ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমরা যে ট্র্যাজেডির শিকার হচ্ছে তাতে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *