Saturday , September 23 2017
শিরোনাম
হোম / লাইফস্টাইল / ফ্যাট প্রয়োজনীয়, নাকি অপ্রয়োজনীয়

ফ্যাট প্রয়োজনীয়, নাকি অপ্রয়োজনীয়

স্বাস্থ্য ডেস্ক
jakia..health_114755

স্বাস্থ্য সচেতন নতুন প্রজন্মের খাদ্য তালিকায় তো ফ্যাটের কোনো স্থানই নেই। স্লিম থাকতে বেছে নিয়েছে ফ্যাট-ফ্রি খাবার। তবে একেবারে ফ্যাট-ফ্রি ডায়েট হলে শেষ পর্যন্ত বিপদ বাড়বে বৈ কমবে না। ব্রিটিশ সংস্থা ন্যাশনাল ওবেসিটি ফোরাম এবং ভারতের পাবলিক হেলথ কোলাবরেশনের যৌথ গবেষণায় এমনটাই জানা গিয়েছে।

গবেষকদের মতে, একেবারে ফ্যাট-ফ্রি খাবার না খেয়ে ডায়েটে রাখুন ‘স্বাস্থ্যকর’ ফ্যাটযুক্ত খাবার। কম ফ্যাটযুক্ত এসব খাবার শরীরের জন্য আদতে বেশ উপকারী। তবে সমস্ত ফ্যাটযুক্ত খাবারই কিন্তু স্বাস্থ্যকর নয়।

মাখন: ফ্যাটবিহীন মার্জারিন না খেয়ে অল্প পরিমাণে মাখন খেলে দেহে স্নেহপদার্থের ঘাটতি পূরণ হবে।

প্রক্রিয়াকরণ মাংস: এ ধরনের মাংসে রয়েছে অতিরিক্ত পরিমাণে লবন ও ট্রান্সফ্যাট। ফলে যতই সুস্বাদু হোক না কেন, বেকন বা সালামি দিয়ে তৈরি স্যান্ডউইচ ক্ষতিকরই বেশি।

অলিভ অয়েল: সালাদ ড্রেসিংয়ের জন্য আদর্শ হলেও অতিরিক্ত তাপে অলিভ অয়েল থেকে ক্যানসার হতে পারে। ফলে এই তেলে ভাজাভুজি করে খাবেন না।

ঘি: অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, প্রতিদিন এক চামচ করে ঘি খেলে অপকারী তো নয়ই, বরং উপকারী। শরীরে স্নেহপর্দাথের ঘাটতি পূরণ এবং ত্বকের জন্য বেশি উপকারি। হজমশক্তি ও ইমিউনিটি বাড়ানো ছাড়াও ঘি-তে বিউটিরিক অ্যাসিডের মতো ফ্যাটি অ্যাসিড থাকায় তা কোলনকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

দই: দুধের মতো কম ফ্যাটযুক্ত নয়, বরং ফুল-ফ্যাট দই খান। কারণ কম ফ্যাটযুক্ত দইয়ে প্রচুর পরিমাণ চিনি থাকে।

লাল মাংস: সপ্তাহে কয়েক বার খুব সামান্য পরিমাণে লাল মাংস খেতে পারেন।

ডিম: গবেষকেরা বলেন, সপ্তাহে চার বার ডিম খেলে তা ক্ষতিকর নয়। এতে ডায়েটারি কোলেস্টরলে আমাদের শরীরে ক্ষতি হয় না।

দুধ: স্কিমড বা ডাবল টোনড মিল্কের পরিবর্তে দিনে এক বার ফুল-ফ্যাট মিল্ক নিন। এতে বার বার খাওয়ার প্রবণতা কমবে এবং অনেক ক্ষণ পেট ভরা থাকবে। এ ধরনের দুধে যে ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে তা ওজন কমাতে সাহায্য করে।

Check Also

রেসিপি: মিষ্টি স্বাদের নারকেল রাইস

লাইফস্টাইল ডেস্ক : শিশুদের জন্য পুষ্টিকর ও সুস্বাদু কোনও আইটেম রান্না করতে চাইছেন? ঝটপট নারকেল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *