Saturday , November 25 2017
শিরোনাম
হোম / আন্তর্জাতিক / যে প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী হবেন নওয়াজের ভাই শাহবাজ
FILE PHOTO - Nawaz Sharif talks with his brother Shahbaz Sharif before addressing his party members who were voted to political posts in the general election, during a function in Lahore May 20, 2013. REUTERS/Mohsin Raza

যে প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী হবেন নওয়াজের ভাই শাহবাজ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :সব জল্পনাকে সত্যি করে অবশেষে উত্তরসূরি হিসেবে নিজের ছোট ভাই শাহবাজ শরিফকে বেছে নিয়েছেন পাকিস্তানের সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। গতকাল শনিবার রাজনৈতিক দল পিএমএল-এনের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শাহবাজ গণপরিষদে নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সামলাবেন জ্বালানিমন্ত্রী শাহীদ খাকান আব্বাসি। অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য ১ আগস্ট জাতীয় সংসদের নিম্নকক্ষের অধিবেশন ডেকেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মামনুন হোসেইন।

নওয়াজের ভাই শাহবাজের পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছেড়ে জাতীয় পরিষদে নির্বাচিত হওয়ার প্রক্রিয়া শেষ করার ৪৫ দিনের সময়টা অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বটা পালন করবেন শহিদ খাকান আব্বাসি।

৩৪২ আসনের পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে নওয়াজের দল পিএমএল-এন এবং তার শরিকদের আসনসংখ্যা ২০৯। ফলে শাহবাজ শরিফই যে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন, সেটা অনেকটাই নিশ্চিত।

ফলাফল নিশ্চিত হলেও শাহবাজকে একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। শাহবাজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী হতে হলে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হতে হবে। নওয়াজ শরিফের শূন্য আসনেই তিনি নির্বাচন করতে পারেন। ওই আসন পিএমএল-এনের অত্যন্ত শক্তিশালী ঘাঁটি। এর আগে অবশ্য প্রথমে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছাড়তে হবে তাকে। পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী পদে শাহবাজের উত্তরসূরি হিসেবে পরিবারের বিশ্বস্ত কাউকে বাছাই করাই এখন তাদের আরেকটি বড় চ্যলেঞ্জ। সে ক্ষেত্রে পাঞ্জাবের প্রাদেশিক শুল্কমন্ত্রী মুজতবা সুজাউর রহমানকে ভাবা হচ্ছে বলে পাকিস্তানি গণমাধ্যমের খবর।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয় মেয়াদে দায়িত্ব পালন করছেন শাহবাজ শরিফ। ভাই নওয়াজের মতো সম্মোহনী ব্যক্তিত্বের না হলেও বুদ্ধিমান রাজনীতিবিদ হিসেবে খ্যাতি আছে শাহবাজের। কাজপাগল হিসেবে পরিচিত পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী নিজেকে খাদিম-ই-আলা (প্রধান সেবক) বলে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তিনি একজন প্রভাবশালী ব্যবসায়ী এবং ইত্তেফাক গ্রুপ অব কোম্পানিজের অন্যতম মালিক। ১৯৯৭ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমবারের মতো তিনি পাকিস্তানের সবচেয়ে বড় প্রদেশটির মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন শুরু করেন। জেনারেল পারভেজ মোশাররফের সেনা অভ্যুত্থানের পর ১৯৯৯ সালে শরিফ ভাইদের সৌদি আরবে নির্বাসনে চলে যেতে হয়। এক দশক পর পিএমএল-এন ২০০৮ সালে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জেতার পর আবার মুখ্যমন্ত্রী হন শাহবাজ শরিফ।

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তড়িৎ প্রকৌশলে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন শাহবাজ শরিফ। ১৯৮৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত শুধু একবার তিনি ২০০২ সালে নির্বাচনে হেরেছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

Check Also

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক চায় চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে চীন আরও নিবিড় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *